একজন সফল চেয়ারম্যানের গল্প

প্রকাশিত : ১৬ অক্টোবর ২০১৯

সিলেট ব্যুরোঃ প্রতিটি মানুষের স্বপ্ন থাকে। কিন্তু স্বপ্নের পথে পা বাড়ালেই একের পর এক আসতে থাকে প্রতিবন্ধকতা। যে ব্যক্তি এসব প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে এগিয়ে যাবেন তিনিই হবেন সফল।

আজ এমনই একজন সমাজ সেবক নিয়ে কথা বলব। যিনি অনেক বাধা ও প্রতিবন্ধকতা ডিঙিয়ে একজন সফল ব্যক্তি (চেয়ারম্যান) হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। তিনি আর কেউ নন। তিনি হলেন সিলেটের সদর উপজেলার ৪ নং খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সফল জনপ্রিয় চেয়ারম্যান এডভোকেট মো: আফছর আহমদ।

খাদিমপাড়ার সাধারণ মানুষের প্রত্যাশা পূরণে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছেন। তারপরও মানুষের প্রত্যাশা থাকে। তিনি, তাঁর পরিশ্রম, সাহস, ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা আর প্রতিভার সমন্বয়ে সাধারণ মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের জন্য, স্থানীয় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড সঠিক ও সুচারুভাবে বাস্তবায়নের জন্য, সর্বোপরি রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের যে স্বপ্ন রয়েছে সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য এবং আগামী নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের জয়লাভের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

এড. মো: আফছর আহমদ এ কাজে সফলও হয়েছেন। সকলের সহযোগিতা পাচ্ছেন এবং সহযোগিতার আশাও ব্যক্ত করে চলেছেন। চেয়ারম্যান হিসেবে সফলতা পাওয়ায় তিনি আজ খাদিপাড়া ইউনিয়নে সর্বত্র মানুষের কাছে সম্মানিত ও জনপ্রিয় হচ্ছেন।

তারুণ্যের প্রতীক এ ব্যক্তি তাঁর বয়স ও অভিজ্ঞতা দুটিকেই হার মানিয়েছেন। তাঁর কর্মকান্ডে মনে হয় তিনি নবীন নয়। তিনি অনেক প্রবীণ। তার অভিজ্ঞতা রয়েছে অনেক।

এ সকল সফল মানুষের পেছনে আছে কিছু গল্প, তা অনেকটা রূপকথার মতো। আর সে সব গল্প থেকে মানুষ খুঁজে নেয় স্বপ্ন দেখার সম্বল, এগিয়ে যাওয়ার জন্য নতুন প্রেরণা।

কথা বলছিলাম সিলেট সদর উপজেলার ৪ নং খাদিমপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সফল চেয়ারম্যান এডভোকেট মো: আফছর আহমদ সাথে।

৪ নং খাদিমপাড়ার ইউনিয়ন পরিষদের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই উল্লেখযোগ্য উন্নয়নে অগ্রানী ভূমিকা রেখে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন। এলাকার হতদরিদ্র মানুষের উন্নয়নে তাঁর নিরন্তর প্রয়াস সব মহলেই প্রশংসা কুঁড়িয়েছে। রাস্তা ঘাটের উন্নয়ন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবায় বিশেষ অবদান, সামাজিক উন্নয়নসহ বিভিন্ন প্রকল্পের বাস্তবায়নে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে এলাকায় নিজের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। তার সাথে দলের ভাবমূর্তির উন্নয়ন হয়েছে। সিলেট শহরতলীর ইসলামপুরের আলোকিত মুখ হিসেবে পরিচিত এ মানুষটি নিজের সাফল্যের কারণে বিভিন্ন সংগঠন কর্তৃক নানা ভাবে প্রশংসিতও হয়েছেন। অসংখ্য মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ ও বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠণের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক সমাজসেবী এড. মো: আফছর আহমদ ।

ব্যক্তি জীবনে তিনি অত্যন্ত নম্র, ভদ্র, সদাহাস্যোজ্জ্বল ও সাদা মনের মানুষ। তাঁর মাঝে কোন অহংকার নেই। নিরহংকারী এই মানুষটি দলমত নির্বিশেষে আজ সকলের কাছে প্রিয়।

গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে সকল মানুষের মন জয় করে বিপুল ভোটে তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই আস্থার প্রতিদানও দিচ্ছেন তিনি। কাজ করে যাচ্ছেন, দলের জন্য এবং খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের জন্য। কাজ করছেন নৌকার জন্য। এই সফল মানুষটি দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে প্রতিটি মানুষের বিপদ আপদে ছুটে যান। এলাকায় তিনি একজন উদার মানসিকতার ও দানশীল মানুষ হিসেবে ইতিমধ্যে পরিচিতি লাভ করেছেন।

এলাকার সাধারণ মানুষের মতে, আমরা নেতা বা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বুঝিনা। আফছর ভাই একজন ভাল মানুষ। তিনি একজন কর্মঠ ব্যক্তি। তিনি চেয়ারম্যান পদে থাকলে আমাদের তথা এলাকার উপকার হবে। আমাদের দু:খ দুর্দশায় তাঁকে সহজেই পাশে পাওয়া যায়।

একান্ত আলাপচারিতায় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট আফছর আহমদ জানান, এলাকাটি শহরতলি হওয়ায় দ্বায়িত্ব নেয়ার পর থেকে তাদের উন্নয়নে বেশী সহযোগিতা পেয়েছেন বিভিন্ন মহল থেকে। আমি আমার নিজস্ব প্রচেষ্টায় এলাকার ভাগ্য উন্নয়নে সবসময় পাশে থাকতে চাই। পাশাপাশি সাধারণ মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে নিজেকে সপে দিব। সৃষ্টিকর্তা আমাকে এ তৌফিক দান করুন।

তিনি আরোও জানান, খাদিমপাড়া ইউনিয়নবাসী যেন আমার উপর আস্থা রাখেন, যতদিন আল্লাহ বাচিয়ে রাখবেন আমি যেন মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে পারি।

আমার ইউনিয়নবাসীর সেবায় সর্বদাই আমি এডভোকেট আফছর আহমদ প্রস্তুত।

স্থানীয় এলাকার বাসীর কাছে আকুল আবেদন, খাদিমপাড়া ইউনিয়নে কোন প্রকার সমস্যা দেখা দিলে, সরাসরি যোগাযোগ করতে অনুরোধ জানান, এলাকাবাসী যেন কোন অবস্থায় হেনস্তা স্বীকার না হন সেই জন্য সেবার দরজা খোলা রাখা আছে সবসময়।

রাজনীতি/কামাল

আপনার মতামত লিখুন :