ওসি হিমাংসুসহ ১১জনের বিরুদ্ধে মামলা

ওসি হিমাংসু ।

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের আদালতে বোয়ালখালী থানার সাবেক ওসি হিমাংশু কুমার দাশসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেহ মোহাম্মদ নোমানের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন অ্যাডভোকেট সমর কৃঞ্চ চৌধুরী।

মামলায় ১০ লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে ক্রসফায়ার দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়। মামলা আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

অভিযুক্তরা হলেন-বোয়ালখালী থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) আতিকুল্লাহ, (এসআই) আরিফুর রহমান, বোয়ালখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাহবুব আলম আখন্দ, (এসআই) আবু বকর সিদ্দিকী, (এসআই) রিপন চাকমা, সহকার উপপরিদর্শক (এএসআই) আলাউদ্দিন, (এসআই) দেলাওয়ার হোসেন, লন্ডন প্রবাসী সঞ্জয় দাশ, সঞ্জয় দাশের সহকারী সজল দাশ, বোয়ালখালী উপজেলার সরোয়াতলী ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তৎকালীন চৌকিদার দিদারুল আলম।

তাদের বিরুদ্ধে ১২০(খ), ১৬১, ১৬৬, ২২০, ৩০৭, ৩২৩, ৩৬৪, ৩৭৯, ৩৮৫, ৩৮৬, ৩৮৭, ১৪৯, ৫০৬, ২১১ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে।

আইনজীবী সমর কৃষ্ণ চৌধুরী বলেন, সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ ছাড়াই ২০১৮ সালের ২৭ মে সন্ধ্যায় আদালত প্রাঙ্গণ থেকে সমর কৃষ্ণ চৌধুরীকে তুলে নিয়ে যায় বোয়ালখালী থানা পুলিশের একটি দল। এরপর মধ্যরাতে চরাঞ্চলে নিয়ে কথিত ক্রসফায়ারের চেষ্টাও চালায় তারা। পরবর্তীতে অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার দেখিয়ে তার বিরুদ্ধে ৪টি মামলা করে পুলিশ। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠে।

তিনি বলেন, আমার চোখের বাঁধন হাতের বাঁধন খুলে আরিফ বলে ১০ লাখ টাকা দিতে পারলে এখান থেক বাঁচিয়ে দিব। মূলত লন্ডন প্রবাসী সঞ্জয় নামে এক ব্যক্তির প্ররোচনায় পুলিশ সমর কৃষ্ণকে ক্রসফায়ার দিতে চেয়েছিল বলে অভিযোগ পরিবারের।

সমর কৃষ্ণের মেয়ে তমালিকা চৌধুরী বলেন, আমার বাবাকে আসলে নিয়ে গিয়েছিল ক্রসফায়ারে দিয়ে মেরে ফেলার জন্য। সেটাতে ব্যর্থ হয়ে আমার বাবার বিরুদ্ধে মিথ্যা অস্ত্র এবং মাদক মামলা দিয়ে কারাগারে রাখতে চেয়েছিল।৪৫ দিন কারাভোগের পর জামিনে মুক্তি পান বাবা। পরে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা সবগুলো মামলা থেকে খালাস পেয়েছেন তিনি।

রাজনীতি/কাসেম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here