চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ, মাদ্রাসা সুপার গ্রেপ্তার

প্রকাশিত : ২ ডিসেম্বর ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ খুলনার পাইকগাছা উপজেলার লস্কর-পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার চতুর্থ শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার গভীর রাতে ওই ছাত্রীর নানি বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা করেছেন। মাদ্রাসা সুপার মো. হাবিবুর রহমানকে (৫৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য স্কুলছাত্রীকে খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মো. হাবিবুর রহমান কয়রা উপজেলার খিরোল গ্রামের মৃত আব্দুল হাকিম সরদারের ছেলে। তিনি প্রায় দেড় বছর ধরে লস্কর-পাইকগাছা ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার হিসেবে চাকরি করছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার সকাল ৬টার দিকে ওই ছাত্রীর বাড়িতে যায় সুপার মো. হাবিবুর রহমান। এ সময় তাকে চতুর্থ শ্রেণির অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে বলে সে মাদ্রাসায় চলে যায়। এরপর মেয়েটি সকাল ৮টার দিকে মাদ্রাসায় যায়। এ সময় সুপার নানা রকম প্রলোভন দেখিয়ে তার নিজ শয়ন কক্ষে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এরপর মেয়েটি কাঁদতে কাঁদতে বাড়িতে এসে সকল ঘটনা তার নানিকে জানায়।

পরদিন মঙ্গলবার এলাকায় ঘটনাটি জানাজানি হলে ওই ছাত্রীর নানি এলাকাবাসীর সহায়তায় থানায় বিষয়টি জানান। মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ রাত ৯টার দিকে মাদ্রাসা সুপার হাবিবুর রহমানকে আটক করে।

মঙ্গলাবার দিবাগত গভীর রাতে ওই ছাত্রীর নানি মামলা করেন। পরে ওই মামলায় হাবিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

এ বিষয়ে সুপার হাবিবুর রহমান বলেন, কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্বে আমাকে ফাঁসানো হয়েছে।

পাইকগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এজাজ শফী বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে মাদ্রাসা সুপারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য খুমেক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রাজনীতি/কাসেস

আপনার মতামত লিখুন :