প্রথম টি-টোয়েন্টিতে হারে শুরু টাইগারদের

ক্রীড়া প্রতিবেদক প্রকাশিত : ২৮ মার্চ ২০২১

হ্যামিল্টনে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের ২১১ রানের জবাবে খেলতে নেমে শুরুতে ৫৯ রান তুলতে গিয়ে ৬ উইকেট হারিয়ে চাপে পরলেও আফিফ হোসেন এবং সাইফ উদ্দিনের ব্যাটিং দৃঢ়তায় হারের ব্যবধান কমাতে সক্ষম টাইগাররা। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৪ রান সংগ্রহ করে টাইগাররা ফলে ৬৬ রানে জয় পায় নিউজিল্যান্ড। এই জয়ের সুবাদে তিন ম্যাচ সিরিজের ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল কিউইরা।

নাঈম শেখ লিটন দাসকে নিয়ে ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে নামেন। ৫ বল মোকাবেলা করে ৪ রান করে আউট হন লিটন দাস। এরপর ১৮বল থেকে ২৭ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার নাঈম শেখ। দলীয় ৪৩ রানের মাথায় সৌম্য সরকার ৬ বল থেকে ৫ রান করে আউট হন। সৌম্য সরকারের বিদায়ের পর মোহাম্মদ মিঠুন ৫ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। মোহাম্মদ মিথুনের বিদায়ের পর খেলতে নামেন অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ। তিনি ৯ বল থেকে ১১ রান তুলে আউট হন।

টাইগার অধিনায়কের বিদায়ের পর মেহেদী হাসান রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরে যান। যেভাবে উইকেটের পতন ঘটেছিল তাতে টাইগার সমর্থকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করেছিল। দলীয় রান ১০০ পার হবে তো ? ডেসিংরুমে বসে সিনিয়রদের উইকেট বিলিয়ে দেয়ার দৃশ্য দেখে তরুণ ক্রিকেটার আফিফ হোসেন হয়তো মনে মনে প্রতিজ্ঞা করেছিলেন এই বিপদে হাল ধরতে হবে। বীর বাঙ্গালী যে সহজে হাল ছাড়ে না হ্যামিল্টনে সে নজির প্রদর্শন করেছেন ২১ বছর বয়সী এই তরুণ টাইগার। ৩৩ বল মোকাবেলা করে ৫টি ৪ এবং একটি ছক্কার সাহায্যে তিনি ৪৫ রানের ইনিংস খেলেন। ২০১৮ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি দেখা পাওয়া এই তরুণ আজ ৫ রানের জন্য দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরির দেখা পাননি।

তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে আজ রবিবার টস জিতে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড। এই নিয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টানা চার ম্যাচে টস হারে টাইগাররা। হামিল্টন এর প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ দুদলে ৫ জন খেলোয়াড়ের টি-টোয়েন্টি অভিষেক ঘটে। বাংলাদেশ দলের নাসুম আহমেদ এবং শরিফুল ইসলাম। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড দলে ফিন এলেন, উইল ইয়া এবং ক্রিস ব্রাউন। নির্ধারিত ২০ ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ২১০ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড।

টি-টোয়েন্টি ম্যাচে অভিষেক ঘটা নাসূম আহমেদ দলীয় ১ রানের মাথায় কিউই ওপেনার ফিন অ্যালোন কে সাজঘরে ফেরত পাঠিয়ে ভালো কিছুর পূর্বাভাস দিলেও অপর কিউই ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় বড় সংগ্রহ গড়ে তুলে স্বাগতিকরা। মার্টিন গাপটিল ২৭ বলে ৩৫, শেষ ওয়ানডে ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো ডেভর কনওয়ে মাত্র ৫২ বলে ৯২ রানে অপরাজিত থাকেন। আর কিছু বল পেলে তিনি সেঞ্চুরির হাঁকাতে পারতেন। উইল ইয়াং ৩০ বলে ৫৩ রান করে মেহেদী হাসানের বলে আউট হন। অভিষেক ম্যাচে নাসুম আহমেদ ৩০ রানে ২ উইকেট তুলে নেন। দুর্দান্ত ৯২ রানের ইনিংস খেলায় ম্যাচ সেরা হয়েছেন ডেভর কনওয়ে।

রাজনীতি/আফজাল

আপনার মতামত লিখুন :