বরিশালের ভাসমান পেয়ারা বাজার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালের স্বরূপকাঠী (নেছারাবাদ) থানাধীন আটঘড় কুরিয়ানার পেয়ারা যা স্বরূপকাঠীর স্থানীয়দের ভাষায় ‘গইয়া’ নামে পরিচিত। দক্ষিণাঞ্চল সহ খোদ রাজধানীতেও রয়েছে বরিশালের এই পেয়ারার ব‍্যাপক চাহিদা।

সারা বছরই এই পেয়ারার ফলন হলেও মূলত আষাঢ় শ্রাবণ মাস হলো এর আসল সময়। এ সময়ে স্বরূপকাঠীর খালে বিলে নৌকায় করে পেয়ারা বিক্রির দৃশ্য দেখবার মতো।

বিশেষ করে বরিশালে সব বাজারে এই পেয়ারা সয়লাভ হয়ে যায়।

ভ্রমন পিয়াষু অনেকেই এই পেয়ারার বাজার দেখার জন্য দূরদূরান্ত থেকে ছুটে যায়।

এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম পেয়ারা (Guava) বাগান গড়ে উঠেছে তিন জেলা ঝালকাঠি, বরিশাল এবং পিরোজপুরের সিমান্তবর্তী এলাকায়। জেলা সমূহের ২৬ গ্রামের প্রায় ৩১ হাজার একর জমির উপর গড়ে উঠেছে এই পেয়ারা বাগান। এ সব জায়গার প্রায় ২০ হাজার পরিবার সরাসরি পেয়ারা চাষের সঙ্গে জড়িত৷ এছাড়া বরিশালের বানারিপাড়া উপজেলাও পেয়ারা চাষের জন্য বিখ্যাত

নৌকায় বাগান থেকে পেয়ারা সংগ্রহ করা হচ্ছে।

বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের ঝালকাঠি জেলার ভিমরুলি ভাসমান হাট (Vimruli Floating Market)৷ এ হাটটি সারা বছর জুড়ে বসলেও প্রাণ ফিরো পায় পেয়ারার মৌসুমে৷ ঝালকাঠী জেলা শহর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে ভিমরুলি গ্রামের আঁকাবাঁকা ছোট্ট খালজুড়ে সপ্তাহের প্রতিদিনই সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে বিকিকিনি। পেয়ারা বোঝাই শত শত নৌকা। বিক্রেতারা এখানকার খালে খুঁজে বেড়ায় ক্রেতা। আর ক্রেতাদের বেশিরভাগই হল পাইকার। বড় ইঞ্জিন নৌকা নিয়ে তারা বাজারে আসেন। ছোট ছোট নৌকা থেকে পেয়ারা কিনে ঢাকা কিংবা অন্য কোনো বড় শহরে চালান করে দেন।

ভিমরুলি হাট খালের একটি মোহনায় বসে। তিন দিক থেকে তিনটি খাল এসে মিশেছে এখানে। অপেক্ষাকৃত প্রশস্ত এ মোহনায় ফলচাষিরা নৌকা বোঝাই ফল নিয়ে ক্রেতা খুঁজে বেড়ান। ভিমরুলির আশপাশের সব গ্রামেই অগণিত পেয়ারা বাগান। এসব বাগান থেকে চাষিরা নৌকায় করে সরাসরি এই বাজারে পেয়ারা নিয়ে আসেন। ভাসমান বাজারের উত্তর প্রান্তে খালের উপরের ছোট একটি সেতু আছে। সেখান থেকে বাজারটি খুব ভালো করে দেখা যায়। আকর্ষণীয় দিক হল এখানে আসা সব নৌকাগুলোর আকার আর ডিজাইন প্রায় একইরকম। মনে হয় যেন একই কারিগরের তৈরি সব নৌকা।

ভিমরুলির বাজারের সবচেয়ে ব্যস্ত সময় হল দুপর ১২টা থেকে বিকেল ৩টা। এ সময়ে নৌকার সংখ্যা কয়েকশ ছাড়িয়ে যায়।

রাজনীতি/সাজ্জাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here