ব্যাহত হচ্ছে টিকাদান কর্মসূচি দাবি আদায়ের আন্দোলনে হেলথ এসিস্ট্যান্টরা!

প্রকাশিত : ২৬ নভেম্বর ২০২০
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্ম বিরতিতে হেলথ এসিস্ট্যান্টরা।

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি: ‘‘ভ্যাকসিন হিরোর সম্মান, স্বাস্থ্য সহকারীর অবদান’’ শ্লোগানে বাংলাদেশ হেলথ
এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলা শাখার উদ্যোগে কর্ম বিরতি কর্মসূচি পালন করছেন স্থানীয় হেলথ এসিস্ট্যান্টরা। আর এতে ব্যাহত হচ্ছে সম্প্রসারিত টিকাদান (ইপিআই) কর্মসূচি।

বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) সকাল থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বাহিরে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে লাগাতার কর্ম বিরতি পালন করছেন তারা। আর হেলথ এসিস্ট্যান্টদের দাবি আদায়ের এ আন্দোলনে স্থানীয় স্বাস্থ্য সেবা প্রত্যাশিরা পড়েছেন চরম বিপাকে। এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সেবা নিতে আসা জনসাধারণ তাদের কর্ম বিরতি দেখে ফিরে যাচ্ছেন।ৎ

জানা গেছে, ১৯৯৮ইং সালে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা, ২০১৮ইং সালে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ঘোষণা এবং চলতি বছরে ২০ ফেব্রুয়ারী স্বাস্থ্যমন্ত্রীর লিখিত প্রতিশ্রুতি স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১১, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ১২ এবং স্বাস্থ্য সহকারীদের ১৩তম গ্রেড প্রদানসহ নিয়োগবিধি
সংশোধন করা হবে।

সরেজমিনে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা গেছে, কমপ্লেক্সের সামনে ব্যানার সাটানো। তাতে বড় করে লেখা বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্ম বিরতি। ব্যানারের সামনে চেয়ার নিয়ে বসে কর্ম বিরতি কর্মসূচি পালন করছে হেলথ এসিস্ট্যান্টরা। তবে সেবা প্রত্যাশিদের সাময়িক অসুবিধার জন্য তারা স্থানীয় সেবা প্রত্যাশিদের কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. রবিউল ইসলাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ফটকে দাঁড়িয়ে প্রতিবেকদকে বলেন, নাতনিকে টিকা দেওয়ার জন্য এসেছিলাম। এসে দেখি হেলথ এসিস্ট্যান্টরা কর্ম বিরতি পালন করছে। হেলথ এসিস্ট্যান্টদের দাবি আদায়ের আন্দোলনের কারণে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বলে জানান ভূক্তভোগী আরও কয়েকজন সেবা প্রত্যাশি।ৎ

এ ব্যাপারে দাবি বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক মো. নাজমুল হোসেন ভূঁইয়া, সদস্য সচিব সোহাগ চন্দ্র রনি, সদস্য আব্দুর রহমান এবং বাংলাদেশ হেলথ এসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন কালীগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মো. ফয়সাল পাঠান প্রতিবেদককে জানান, তৃণমূলে স্বাস্থ্য সহকারীদের অর্জনেই বাংলাদেশ আজ টিকাদানে রোল মডেলে পরিনত হয়েছে এবং সরকার প্রধান পেয়েছে ৭টি পুরস্কার এবং সম্প্রতি আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্লোবাল এলায়েন্স ফর ভেকসিনেশন এন্ড ইমুনাইজেশন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভ্যাকসিন হিরো উপাধিতে ভূষিত করেন। আর এই সম্মাননা আর্জনের কারিগর স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীগণ। অথচ তারাই আজ বেতন বৈষম্যের শিকার হচ্ছে বলে দুঃখ প্রকাশ করেন। তবে দাবি আদায় না হলে তাদের এ আন্দোলন অনির্দিষ্টকালের জন্য চলবে বলেও জানান তারা।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মিনহাজ উদ্দিন মিয়া জানান, আমাদের পক্ষ থেকে তাদের কাজে ফিরতে বলা হয়েছে। তাদেরকে আমরা বুঝানোর চেষ্টা করেছি যে কাজ করেও আন্দোলন সংগ্রাম করা সম্ভব। কিন্তু তারা আমাদের কথা আমলে নিচ্ছেন না। আর তাদের জন্য সম্প্রসারিত টিকাদান (ইপিআই) কর্মসূচি ব্যাহত হচ্ছে। বিষয়টি জেলা সিভিল সার্জন স্যারের সাথে কথা বলব। তবে খুব দ্রুত এ আন্দোলনের অবসান হবে বলে তিনি আশা করেন।

রাজনীতি/কাসেম

আপনার মতামত লিখুন :