আমাদের বন্ড মার্কেটকে শক্তিশালী করতে হবে : সালমান

রাজনীতি ডেস্ক

মঙ্গলবার, ৫ অক্টোবর ২০২১, বিকাল ০৬:৪২


পুঁজিবাজারে এখন যেভাবে সূচকের উত্থান হচ্ছে পতন হচ্ছে সেটিকে স্বাভাবিক হিসেবেই দেখছেন প্রধানমন্ত্রীর শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

সূচক হঠাৎ করে বেশি বেড়ে গেলে পরে ধস নামে বলেও সতর্ক করেছেন তিনি। ১৯৯৬ ও ২০১০ সালে পুঁজিবাজারে ধসের উদাহরণও টেনেছেন সালমান।

‘পুঁজিবাজার উন্নয়নে বিনিয়োগ শিক্ষার গুরুত্ব’ বিষয়ে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশেনর উদ্যোগে এক ভার্চুয়াল আলোচনায় এ কথা বলেন তিনি।

সালমান বলেন, ‘পুঁজিবাজারে এখন সূচক একটি জায়গায় দেখা যাচ্ছে। বিনিয়োগকারীদের মধ্যেও সূচক নিয়ে খুবই আগ্রহ। সূচক পুঁজিবাজারের জন্য প্রয়োজন তবে একমাত্র নয়। সূচক হঠাৎ উত্থান হওয়ার পর পতন হয় তখন সেটি ক্রাশ হয়।

‘এ ধরনের ক্রাশ আমরা ৯৬ সালে দেখেছি, ২০১০ সালে দেখেছি। যখন সূচক ক্রমাগতভাবে বেড়েছে। তারপর যখন সূচক পড়তে শুরু করে।’

বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ উপলক্ষ্যে আয়োচিত আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম।

মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুর রহমান স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন।

তিন হাজার কোটি টাকার সুকুক বন্ড নিয়ে আসা বেক্সিমকোর কর্ণধার সালমান রহমান বলেন, ‘আমাদের বন্ড মার্কেটকে শক্তিশালী করতে হবে। ইন্ডিয়া বা লন্ডনের স্টক মার্কেটের দিকে যদি আমরা নজর দেই তাহলে দেখব, তাদের ইক্যুইটি মার্কেটের তুলনায় বন্ড মার্কেট বেশি শক্তিশালী। আমাদের এখানে ইক্যুইটি মার্কেটে এক থেকে দুই শতাংশ হবে বন্ড মার্কেট।

‘এখন পুঁজিবাজার বিভিন্ন ধরনের বন্ড আসছে। সেগুলোর বিষয়ে বিনিয়োগকারীদের জানাতে হবে। এটিও বিনিয়োগ শিক্ষার মধ্যে পড়ে। তাহলে বিনিয়োগকারীরা বিকল্প বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।’

মিউচ্যুয়াল ফান্ড পুঁজিবাজারে ভালো করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোর সম্প্রতি সময়ে ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে। এটি পুঁজিবাজারের জন্য ভালো দিক। তবে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বিনিয়োগের বিপরীতে বিনিয়োগকারীদের ইচ্ছা অনুযায়ী বের হয়ে যাওয়ার সুযোগ দেয়া উচিত। তাহলে এ সেক্টরের প্রতিও বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়বে।’

পুঁজিবাজারে প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের আরও সচেতন হওয়ার তাগিদও দেন সালমান। বলেন, ‘তাদের আচরণ যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মতো না হয়। এখানে বিনিয়োগ শিক্ষার প্রয়োজন আছে।

‘তারা পুঁজিবাজারের কোম্পানি প্রোফাইল তৈরি করতে পারে। কোন কোম্পানির কী অবস্থা সেটি সম্পর্কে বিনিয়োগকারীদের অবহিত করতে পারে।’

বিএসইসি সম্প্রতি মার্কেট মেকার লাইসেন্স দিচ্ছে। এটি পুঁজিবাজারের জন্য ভালো উল্লেখ করে সালমান বলেন, ‘তাদের উচিত হবে পুঁজিবাজারের ভালো সিকিউরিটিজগুলো বাছাই করে বিনিয়োগকারীদের সে সম্পর্কে অবহিত করা, পুঁজিবাজারের যাতে উন্নয়ন হয় সেভাবে কাজ করা।’

এমএসি/আরএইচ

Link copied