তাইওয়ানের কাছে সামরিক মহড়া চীনের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১, বিকাল ০৫:০২


তাইওয়ানের সঙ্গে সাম্প্রতিক উত্তেজনার মধ্যে দ্বীপদেশটির কাছাকাছি অবস্থানে থাকা ফুজিয়ান প্রদেশে সামরিক মহড়া চালিয়েছে চীন। ফুজিয়ান প্রদেশের দক্ষিণাংশে তাইওয়ানের কাছের সাগরঅঞ্চলে সৈকতে অবতরণ এবং যুদ্ধের মহড়া চালিয়েছে চীন। 

 

তাইওয়ান নিজেদের সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে বিবেচনা করলেও চীন দ্বীপটিকে দেখে নিজেদের ‘বিচ্ছিন্ন প্রদেশ’ হিসেবে। পুনরেকত্রীকরণের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে বল প্রয়োগের সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়নি বেইজিং।

 

সম্প্রতি চীনা শাসন স্বীকার করে নেওয়ার জন্য বেইজিং সামরিক এবং রাজনৈতিক চাপ বাড়িয়েছে বলে তাইওয়ান অভিযোগ করে আসছে।

 

চীনের যুদ্ধবিমান সম্প্রতি তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা জোনে (এআইডিজেড) অনুপ্রবেশের পর দুপক্ষে উত্তেজনা বেড়েছে। গত শুক্রবার থেকে টানা চারদিন চীনের বিমান বাহিনীর রেকর্ডসংখ্যক যুদ্ধবিমান তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা জোনে অনুপ্রবেশ করেছে।

 

এই অনুপ্রবেশের মুখে তাইওয়ান বিশ্বের অন্য গণতান্ত্রিক দেশগুলোর কাছ থেকে সমর্থন কামনা করেছে, বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ও এর মিত্রদেশগুলোর কাছ থেকে।

 

এই পরিস্থিতির মধ্যেই সোমবার চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির দৈনিক পত্রিকা তাদের উইবো মাইক্রোব্লগিং সাইটে এক সংক্ষিপ্ত প্রতিবেদনে জানিয়েছে, সম্প্রতি কয়েকদিনে ফুজিয়ান প্রদেশের দক্ষিণাংশে মহড়া চালানো হয়েছে। এতে কিছু সেনা এবং নৌকা অংশ নিয়েছে।

 

সৈকতে আক্রমণ শানাতে সেনাদের কয়েকটি ভাগে ভাগ করে এই মহড়া চালানো হয়। মহড়ার ব্যাপারে বিস্তারিত আর কিছু জানায়নি চীনের সামরিক পত্রিকা।

 

তবে পত্রিকাটির দেওয়া মহড়ার একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, ছোট ছোট নৌকায় করে সেনারা সৈকতে আক্রমণ চালাচ্ছে। তারা স্মোক গ্রেনেড ছুড়ছে, কাঁটাতারের প্রতিরক্ষা বেষ্টনী পার হচ্ছে এবং বালুতে ট্রেঞ্চ খুঁড়ছে।

 

চীনের ফুজিয়ান প্রদেশটির অবস্থান তাইওয়ানের কাছাকাছি হওয়ায় দ্বীপদেশটিতে চীনের যে কোনওরকম আগ্রাসনের ক্ষেত্রে হামলা চালানোর মূল কেন্দ্র হয়ে  উঠবে এই প্রদেশটি।

 

চীন নিয়মিতই বিভিন্ন উপকূলে এমনকি বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরেও সামরিক মহড়া চালায়। তাইওয়ান চীনের এইসব মহড়া জোর-জবরদস্তি করে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠারই কৌশল বলে এর নিন্দা করে আসছে।

 

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং একদিন আগেই এক ভাষণে বলেছেন, তাইওয়ানের সঙ্গে পুনরেকত্রীকরণ হতেই হবে। শি বলেন, তিনি চান তাইওয়ান চীনের সঙ্গে হংকংয়ের মতো ‘এক দেশ, দুই ব্যবস্থা’ এই নীতির আওতায় শান্তিপূর্ণ পুনরেকত্রীকরণে রাজি হোক।

 

তাইওয়ানের প্রেসিডেন্ট কার্যালয় বলেছে, তাইওয়ানের জনগণের ভাবনা স্পষ্ট, তারা ‘এক দেশ দুই ব্যবস্থা’ প্রত্যাখ্যান করেছে। বেইজিংকে ‘অনুপ্রবেশ, হয়রানি ও ধ্বংসের উসকানিমূলক পদক্ষেপগুলো’ পরিত্যাগ করারও আহ্বান জানায় তারা। 

এমএসি/আরএইচ

Link copied