কুরবানী উপলক্ষে জমে উঠেছে অন্যতম অনলাইন গরুর হাট ‘গরু চাই’

বিজ্ঞাপন
3 Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজনীতিঃ চারপাশে চলছে করোনার প্রার্দুভাব । আর এরই মধ্যে আসন্ন কুরবানী উপলক্ষে জমে উঠেছে অন্যতম অনলাইন গরুর হাট “গরু চাই” GoruChai.com । সত্যিকারের হাটের অভাব সর্ম্পূণ রূপে পোষাতে না পারলেও প্রচলিত বভিন্নি অসুবধিা দূর করে নতুন বেশ কছিু সুবিধা যোগ করায় এরই মধ্যে বিক্রি বাট্টা বেশ ভালোই চলছে “গরু চাই” অনলাইন হাটে। প্রচলতি হাটের অধিক ভিড় , কাদা, এবং বিভিন্ন অসুবিধার কারণে অনেকেই হাটে যেতে চান না। গরু কেনার পর তা বাড়িতে নেওয়া ছিল এক ঝামেলার বিষয়। তাছাড়া এই করোনার সময়ে বিপুল জনসমাগমের জায়গা হাটে যেতে অনেকেই নিরুৎসাহিত বোধ করছনে।

“গরু চাই” অনলাইন হাট এই অসুবধিা গুলো দূর করে ক্রেতাদের দিচ্ছে ঝামলো বিহীন গরু কেনার এক অনন্য অভিজ্ঞতা।


GoruChai.com এর উদ্দেশ্য ক্রেতা ও র্ফামের মধ্যে একটি সেতু তৈরী করা যেখানে একজন ক্রেতা হাটে না গিয়ে ঘরে বসে একটি চমৎকার কুরবানীর পশু কিনতে পারেন এবং একজন খামারি হাটে গরু নিয়ে আসার কষ্টটা না করে যেখানে আছেন সেখানে থেকেই তার গরুটি বিক্রি করতে পারে। “গরু চাই” এর পুরো টিম এই চেষ্টা করে যাচ্ছে । এই মুর্হূতে “গরু চাই” এর সংগ্রহে আছে ৬৪ টি খামার প্রায় ১০০০ টির মতো গরু। “গরু চাই” – এর এই বিশাল র্কমযজ্ঞে কাজ করে যাচ্ছে সুদক্ষ একটি দল। একজন কাস্টমার তার সাধ ও সাধ্যরে সমন্বয় ঘটয়ে পছন্দের দাম, রং, জাত বেছে পরিবারের সবাইকে নিয়ে ঘরে বসে গরু দেখতে পারবনে, সেখান থেক র্শটলিস্ট করতে পারবেন, কমপেয়ার করতে পারবনে, অ্যাডভান্স পেমেন্ট করে বুকিং দিতে পারবেন।

সবশেষে একটি গরু পছন্দ করে কিনতে পারবনে। আর দর দামের কোনো সুযোগ “গরু চাই” -এ থাকছে না কারণ গরুর মূল্য র্ফাম কতৃক নিধারিত। সীমিত পরিসরে থাকছে স্লটার সুবধিা। ক্রেতার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে টাকা পয়সা লেনদেনের বিষয় “গরু চাই” এনেছে ভিন্নতা। গরু চাই এর ওয়বেসাইট থেকে একজন ক্রেতা চাইলইে র্কাড এর মাধ্যমে অনলাইন ব্যাংক ট্রান্সফার, ব্যাংক একাউন্ট ট্রান্সফার অথবা ক্যাশ এর মাধ্যমে গরু কিনতে পারবনে। আর যোগাযোগের জন্য রয়েছে ফসেবুক ম্যাসেজ অপসন। এছাড়াও আছে আমাদের কল সেন্টার যেখানে কল করে একজন ক্রেতা “গরু চাই” নিয়ে তার যেকোনো প্রশ্নের উত্তর পাবেন।


এই বিষয়ে কথা হয় অন্যতম অনলাইন গরুর হাট “গরু চাই” এর সহ প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ রেফায়েত চৌধুরীর সাথে, তিনি বলেন, অনলাইন হাট জমে ওঠার প্রধান কারণ হলো করোনার কারণে মানুষের বদলে যাওয়া মনোভাব। প্রচুর মানুষ ‘গরু চাই’ থেকে গরু কিনছেন এবং আমাদরে এই আধুনিক সেবার প্রশংসা করেছেন, বিশেষ করে পেমেন্ট এবং ডেলিভারি সুবধিার। গুলশান নিকেতনে আমাদরে র্কপোরটে অফিস এবং আমাদরে চমৎকার একটি ওয়বেসাইট গ্রাহক প্রিয়তা পেতে এবং বশ্বিাসযোগ্যতা বাড়াতে আমাদের অনেক সাহায্য করেছে”।

তিনি আরও বলেন, ”এই মুর্হূতে চাহিদা বেশি হলো মাঝারী ও ছোট গরুর। আর খামারি মালকিরা তাদের গরুর দাম কমাচ্ছে। তাই “গরু চাই” ও তাদের এ গরুর দাম কমাচ্ছে যা কেতাদেরকে আরো “গরু চাই” থেকে গরু কেনার বিষয়ে উৎসাহিত করবে। আর দিন শেষে শত মানুষে কুরবানীর বিষয়ে সহযোগতিা করে ভালোবাসা পাওয়া “গরু চাই” টিম এর সবচাইতে বড় পাওয়া।

রাজনীতি/কাসেম

3 Shares
বিজ্ঞাপন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here