পাপিয়া দম্পতির রায় অসৎ রাজনীতিবিদদের জন্য বার্তা: রাষ্ট্রপক্ষ

পাপিয়া দম্পতি ।

নিজস্ব প্রতিবেদক: নরসিংদী জেলা আওয়ামী যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমনকে অস্ত্র মামলার রায়ে ২৭ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

২৭ বছর কারাদণ্ডের মধ্যে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে অস্ত্র আইনের ১৯ (এ) ধারায় ২০ বছর ও অবৈধ গুলি রাখার দায়ে একই আইনের ১৯ (এফ) ধারায় ৭ বছর কারাদণ্ড দেয়া হয়। তবে দুটি ধারার সাজা একই সাথে চলবে মর্মে আদেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। ফলে তাদের সর্বোচ্চ ২০ বছর কারাভোগ করতে হবে।

সোমবার (১২ অক্টোবর) দুপুরে ঢাকা মহানগরের ১ম স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল কেএম ইমরুল কায়েশের আদালত এ রায় প্রদান করেন। রায় শোনানের জন্য তাদের কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়েছেল। পরে তাদের সাজা পরোয়ানা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রায়ের পর্যবেক্ষণে ট্রাইব্যুনাল বলেন, আসামিরা রাজনীতির সাথে ওৎপ্রোতভাবে জড়িত। কিন্তু তাদের সজ্জন ব্যক্তি বলা যাবে না। তাদের বাড়িতে নগদ এত টাকা ও অস্ত্র থাকার কোনো যুক্তিসংগত কারণ থাকতে পারে না। এ সব রাজনীতিবিদরা নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত। তাদের দিয়ে দেশ ও জাতির কোন কল্যাণ আশা করা যায় না।

রায়ের প্রতিক্রিয়ায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু বলেন, আমরা মামলা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। আসামিরা একই পরিবারের এবং স্বামী স্ত্রী হওয়ায় ও একজন মহিলা হওয়ায় তাদের সর্বোচ্চ সাজা না দিয়ে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে ২০ বছর ও গুলি রাখার দায়ে ৭ বছর কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর তাপস কুমার পাল বলেন, এটি অসৎ রাজনীতিবিদদের জন্য একটি ম্যাসেজ।

তবে আসামি পক্ষের আইনজীবী এবিএম গোলাম ফাত্তাহ ও শাখাওয়াত হোসেন ভুইয়া বলেন, সাক্ষ্য প্রমাণ দ্বারা রাষ্ট্রপক্ষ কিছুই প্রমাণ করতে পারেন নাই। মামলা আরো সাজাও করে রাজনৈতিকভাবে দেয়া হয়েছে। আমরা উচ্চ আদালতে যাবো।

রায়ের তারিখ ঘোষণার আগে চার্জশিটের ১৪ সাক্ষীর মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করে ট্রাইব্যুনাল। গত ২৩ আগস্ট পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুরের বিরুদ্ধে এ মামলায় চার্জ গঠন করা হয়।

এর আগে গত ২২ ফেব্রুয়ারি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ২ সহযোগীসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এরপর তাদের নিয়ে অভিযানে রাজধানীর একটি হোটেলে বুকিং দেওয়া বিলাসবহুল প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট রুম ও ইন্দিরা রোডের ফ্ল্যাট থেকে বিদেশি একটি বিদেশি পিস্তল, ২টি ম্যাগজিন, ২০ রাউন্ড গুলি, ৫ বোতল বিদেশি মদ, ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, ৫টি পাসপোর্ট, ৩টি চেক, বেশ কিছু বিদেশি মুদ্রা ও বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি এটিএম কার্ড উদ্ধার করে র‌্যাব। এ ঘটনায় অস্ত্র, মাদক ও জাল টাকা রাখার অপরাধে পৃথক ৩টি মামলা করা হয়।

পরে ২৪ ফেব্রুয়ারি তাদের ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হলে পাপিয়া ও তার স্বামী সুমনের প্রত্যেক মামলায় ৫ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন আদালত। এছাড়া তাদের সহযোগী সাব্বির খন্দকার ও শেখ তাইয়েবা নুরের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

রাজনীতি/কাসেম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here