বিশ্বনাথে যুবককে হত্যার প্রচেষ্টায় ৩ আসামির জামিন- মামলা দায়ের

বিশ্বনাথ (সিলেট) প্রতিনিধি: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চি ইউনিয়নের বিলপার গ্রামের মনোহর আলীর পুত্র জুয়েলকে প্রাণের মারার প্রচেষ্টায় মামলায় হাজতে থাকা ৩ আসামি, সুহেল আহমদ, নাছির উদ্দিন ও ইসলাম উদ্দিন জামিনে মুক্তি লাভ করেছে! বুধবার (২২ জুলাই) ভার্চুওয়াল আদালতে শুনানি শেষে জামিন মঞ্জুর হয়।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জুন ভিকটিম জুয়েল বাড়ির পূর্বে জমিতে ঘাস কাটতে গেলে আসামিগণ তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে প্রাণে হত্যার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে তার মাথার হাড় কেটে মগজ বের হয়ে যায়। দীর্ঘদিন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (জুয়েল) চিকিৎসা গ্রহণ করলেও এখও সুস্থ হয়নি। এখনও কোন কথাবার্তা বলতে পারছেনা এবং দাঁড়াতেও পারেনা। লোকজন দেখলে পিল পিল করে কাঁদতে থাকে কোন রকম প্রাণে বাঁচলেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা খুবই কঠিন বলে তার পরিবার দাবি করছেন। এ ঘটনার পূর্বে একই আসামিরা তার হাতের ২টি আঙ্গুলও কেটে দিয়েছিল। ২৪ জুন ঘটনার পর উর্ধতন পুলিশ কর্মকর্তার নির্দেশে থানা পুলিশ সুহেলকে গ্রেফতার করেছিল।

এদিকে ২৪ জুন জুয়েলকে একতরফাভাবে মারপিট করার পরও গত ১৬ জুলাই জুয়েলের মামলার
আসামি ফয়জুল ইসলাম বিশ^নাথ ৩নং আমলি আদালতে ঐদিনের ঘটনা উল্লেখ করে ৬জনকে
আসামি করে ১টি সাজানো মামলা দায়ের করে (বিশ্বনাথ সিআর ১২৯/২০ইং)।

মামলার আসামিরা হচ্ছেন, মনোহর আলীর পুত্র রুহেল আহমদ, জখমি জুয়েল, তার মা জুলেখা বেগম, ভাই আতিকুর রহমান এবং গ্রামের মুরব্বি ফয়জুল ইসলাম ও লয়লুছ মিয়া। আদালত মামলাটি তদন্তের জন্য বিশ্বনাথ থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। সম্পূর্ণ এ সাজানো মামালা দায়ের এবং গ্রামের ২জন মুরব্বিকে আসামি করার খবরে গ্রামে মধ্যে উত্তেজনা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। ইতিপূর্বে জুয়েলের দুই বোন রুবিনা ও সুবিনাকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। অসহায় মনোহর আলীর পরিবারকে ভিটেমাটি উচ্ছেদ করতে পাশের বাড়ির একটি প্রবাসি পরিবার উঠেপড়ে লেগেছে। গ্রামবাসি বার বার বিষয়টি নিস্পত্তির উদ্যোগ নিলে কতিপয় লোকের কারনে বিষয়টি মিমাংশা করা যায়নি। অসহায় মনোহর আলীর পরিবারকে সহায়তা করতে গিয়ে, মিথ্যা মামলায় গ্রামের দুইজন মুরব্বি বিনা কারনে আসামিও হয়েছেন দাবি গ্রামবাসী অনেকের।

রাজনীতি/কাসেম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here